Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে রেকর্ড বইতে ইতিহাস গড়লো ইংল্যান্ড!
অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে রেকর্ড বইতে ইতিহাস গড়লো ইংল্যান্ড!
অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে রেকর্ড বইতে ইতিহাস গড়লো ইংল্যান্ড!

অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে রেকর্ড বইতে ইতিহাস গড়লো ইংল্যান্ড!

অস্ট্রেলিয়াকে হোয়াইটওয়াশ করে রেকর্ড গরলেন ইংল্যান্ড। পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের শেষ ম্যাচে স্নায়ুচাপে অস্ট্রেলিয়াকে ১ উইকেটে হারিয়েছে ইংল্যান্ড। আর এই ম্যাচের মাধ্যমে আরও একটি লজ্জা জনক ইতিহাসের জন্ম দিল ওয়ানডের আরেক শক্তিশালি ও সাবেক বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটের পরাশক্তি অজিদের এর আগে তিন ম্যাচ বা চার ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে হারালেও এবারই প্রথম পাঁচ ম্যাচ ওয়ানডে সিরিজের ৫-০ হোয়াইটওয়াশ করল ইংল্যান্ড।

সিরিজ আগেই জিতে নিয়েছেন ইংল্যান্ড। তবে এবার শেষ ম্যাচের হারলেও অজিদের হারের লজ্জা খানিকটা স্বস্তিরও মধ্যে ছিল। কেননা শুরুর ম্যাচ গুলো ছিলো ইংলিশদের জন্য মোটামুটি ইতিহাস। প্রতিটা ম্যাচেই রাজত্ব করেছেন ইংলিশরা। সবম্যাচেই বিশাল ব্যবধানে হেরেছে অজিরা। শুধু মাত্র শেষ ম্যাচেই কম ব্যবধানে হার দেখে তারা।

অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে এই সিরিজেই ওয়ানডে ক্রিকেটের ইতিহাসের সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড স্পর্শ করলো ইংল্যান্ড। প্রথমবারের মত কোন দল হিসেবে এক ইনিংসে ৪৮১ রান তুলেছে ইংল্যান্ড যা রেকর্ড বইয়ের পাতায় স্মৃতি হয়ে থাকবে।

রবিবার ওল্ড ট্র্যাফোর্ডে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৩৪.৫ ওভারে ২০৫ রানেই অলআউট হয় অস্ট্রেলিয়া। ইংলিশ বোলারদের কাছে ব্যাট হাতে দাড়াতেই পারেননি অজি বোলাররা। দলের হয়ে হাফ-সেঞ্চুরি করেছেন মাত্র একজন। ৪২ বলে ৯ চারে ৫৬ রান করেছেন হেড। দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ৪৭ রান করেছেন শট। ইংল্যান্ডের হয়ে চারটি উইকেট নেন মইন আলী।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে শুরুটা বেশ একটা ভালো করতে পারেনি ইংলিশরা। ব্যাট হাতে সবাই ছিল মোটামুটি ব্যর্থ। হয়তো এই ম্যাচে ফলাফল টা অজিদেরও হতে পারতো। কিন্তু শেষ আর হলো না। কারণ দলের হয়ে ব্যাট হাতে জ্বলে উঠলেন জর্জ বাটলার তিনি একাই দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে গেলেন।

দলের সবার ছোট-খাট ইনিংসকে সঙ্গী করে পূরণ করলেন নিজের সেঞ্চুরি। ১২২ বলে অপরাজিত তিনি ১১০ রান করেন তিনি। আর তার ইনিংসটি সাজানো ছিল ১২ চার ও ১ ছক্কায়। তার ব্যাটেই অজিদের হোয়াইটওয়াশ করল ইংল্যান্ড।

দুই দলের সংক্ষিপ্ত স্কোর:

অস্ট্রেলিয়া: ৩৪.৪ ওভারে ২০৫ (ফিঞ্চ ২২, হেড ৫৬, স্টয়নিস ০, মার্শ ৮, কেয়ারি ৪৪, পেইন ১, শর্ট ৪৭*, অ্যাগার ০, রিচার্ডসন ১৪, লায়ন ১, স্ট্যানলেক ২; বল ০/২৯, কারান ২/৪৪, মইন ৪/৪৬)

ইংল্যান্ড: ৪৮.৩ ওভারে ২০৮/৯ (রয় ১, বেয়ারস্টো ১২, হেলস ২০, রুট ১, মর্গ্যান ০, বাটলার ১১০*, মইন ১৬, কারান ১৫, প্লাঙ্কেট ০, রশিদ ২০, বল ১*; স্ট্যানলেক ৩/৩৫, রিচার্ডসন ৩/৫১, স্টয়নিস ২/৩৭)

ফল: ইংল্যান্ড ১ উইকেটে জয়ী

সিরিজ: ৫ ম্যাচ সিরিজে ইংল্যান্ড ৫-০তে জয়ী

ম্যান অব দা ম্যাচ: জস বাটলার

ম্যান অব দা সিরিজ: জস বাটলার

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: