Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » কাল থেকে শুরু ত্রিদেশীয় নয় ‘পুনর্মিলনী সিরিজ’
কাল থেকে শুরু ত্রিদেশীয় নয় ‘পুনর্মিলনী সিরিজ’
কাল থেকে শুরু ত্রিদেশীয় নয় ‘পুনর্মিলনী সিরিজ’

কাল থেকে শুরু ত্রিদেশীয় নয় ‘পুনর্মিলনী সিরিজ’

গতকাল জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল বাংলাদেশে পারি জমিয়েছে। শ্রীলংকা ক্রিকেট দলও আসছে। এদিকে যে দুদল বাংলদেশে আসছে সে দলের খেলোয়ারদের চেয়ে দলের প্রধান কোচদেরকে ভাল ভাবেই চেনেন বাংলাদেশের খেলোয়াররা। হিথ স্ট্রিকের সঙ্গে দুপুরে মাশরাফি বিন মুর্তজার দেখা হলো মাঝ উইকেটে। দুই বছর আগেও যিনি ছিলেন বাংলাদেশ দলের পেস বোলিং কোচ ছিলেন, সেই স্ট্রিক এখন জিম্বাবুয়ের কোচ। প্রতিপক্ষের কোচ হয়েছেন তাতে কি হয়েছে,  নিশ্চয়ই মাশরাফির সঙ্গে হৃদ্যতাপূর্ণ সম্পর্কে চিড় ধরেনি। বাংলাদেশ ওয়ানডে অধিনায়ক স্ট্রিকের ক্যাটকেটে রেডিয়াম রঙের শর্টস ধরে তাই রসিকতা করলেন এতেই বুঝা যায়।

বাংলাদেশ দলের ড্রেসিংরুমের সামনে মুশফিকুর রহিমকে দেখেই জড়িয়ে ধরলেন স্ট্রিক। পরে  সেই দলের ড্রেসিংরুমেও ঢুকে পড়লেন জিম্বাবুয়ের কোচ! আজ স্ট্রিককে দেখা গেল। কাল হয়তো চন্ডিকা হাথুরুসিংহের সঙ্গেও এমন সৌহার্দ্যপূর্ণ সাক্ষাৎ হবে বাংলাদেশ দলের খেলোয়াড় ও কোচিং স্টাফদের। কেউ কেউ তাই ত্রিদেশীয় সিরিজটাকে বলছেন, ‘পুনর্মিলনী সিরিজ’!

পুনর্মিলনী অনুষ্ঠানে যেমন অতীত ঘটনা সকলের নিকট প্রাধান্য পায়, মুহূর্তেই আজ স্ট্রিকের সংবাদ সম্মেলনেও তা-ই হলো। বাংলাদেশে থাকতে কাজ করেছেন হাথুরুর সঙ্গে। শ্রীলঙ্কান কোচ যেভাবে আকস্মিক বিদায় নিয়েছেন বাংলাদেশ থেকে, দূর থেকে স্ট্রিক কীভাবে দেখেছেন বিষয়টা? হাথুরুর বাস্তবতা বেশ অনুধাবন করতে পারছেন জিম্বাবুয়ে কোচ, ‘এখানে ছিলাম না, আমার তাই বলা কঠিন।

দিন শেষে নিজ দেশকে কোচিং করানোর সুযোগ সব সময়ই বড় ব্যাপার।চন্ডিকা একজন শ্রীলঙ্কান।  বাংলাদেশের অন্য কোনো কোচ যদি অন্য দেশে থাকে, তাকে এখানে দায়িত্ব নেওয়ার প্রস্তাব দিলে সেটি হাতছাড়া করা খুব কঠিন হবে। বাংলাদেশের হয়ে চন্ডিকা খুব ভালো কাজ করেছে। তার কোচিংয়ে যে সাফল্য এসেছে, সেটি ভুলে যাওয়া ঠিক হবে না। তিন বছরের চুক্তি করেছিল। কিন্তু সে থাকে অস্ট্রেলিয়ায়, ওখানে তার পরিবার আছে। পরিবার থেকে দূরে থাকা কঠিন।  তাই হয়তো সে চলে গেছেন নজি দেশে আর নিজ দেশকে কোচিং করানো সব সময়ই সম্মানের। সবাই চায় নিজ দেশের দলকে কোচিং করাতে।

হাতুরে সিং এর মতো স্ট্রিক নিজেও  এখন কাজ করছেন তাঁর দেশের হয়ে। হাথুরুর ভাবনাকে তিনি তাই ইতিবাচকভাবে দেখছেন। তবে জিম্বাবুয়ে কোচ মেনে নিচ্ছেন পুনর্মিলনীর এই সিরিজে তাঁর দল খেলবে আন্ডারডগ হয়ে, ‘আমাদের এখনো অনেক দূর যেতে হবে। এই সিরিজে আমরা আন্ডারডগ। তবে এখনো মনে করি দলে দুর্দান্ত খেলোয়াড় আছে। আমাদের এখন জিম্বাবুয়ে দলটাকে এগিয়ে নিতে হবে। গত বছর শ্রীলঙ্কাকে দেখিয়েছি দেশের বাইরেও আমরা প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারি। খুবই তৃপ্তিদায়ক ছিল সেটা। তবে দল হিসেবে আমাদের এখনো অনেক দূর যেতে হবে। তাই সবকিছু ছাড়িয়ে সকলের নিকটি বেশ আনন্দের বিষয় হবে আগামিকাল শুরু হতে যাওয়া ‘পুনর্মিলনী সিরিজে’,যেখানে দেখা যাবে গুরুদের সাথে শিষ্যদের লড়াই।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: