Home » জীবনধারা » গরুর মাংসের গুণাগুণ ও উপকারিতা-অপকারিতা
গরুর মাংসের গুণাগুণ ও উপকারিতা-অপকারিতা
গরুর মাংসের গুণাগুণ ও উপকারিতা-অপকারিতা

গরুর মাংসের গুণাগুণ ও উপকারিতা-অপকারিতা

গরুর মাংস পুষ্টি উপাদানে ভরপুর একটি খাবার। এই খাদ্যে পুষ্টি উপাদান বেশি হওয়ার ফলেই অতিরিক্ত গরুর মাংস খেলে স্বাস্থ্যের ঝুঁকি বেড়ে যায়। তবে এই খাদ্যের মধ্যে মজুদ পুষ্টি উপাদানগুলো শরীরের বিভিন্ন উপকারেও আসে। কোরবানি ঈদে সাধারণত এই গরুর মাংস খাওয়া অনেক বেড়ে যায়।

গরুর মাংসে প্রোটিন, জিংক, ফসফরাস ও আয়রন রয়েছে প্রচুর পরিমাণে। প্রোটিন মাংসপেশিকে শক্তিশালী ও মজবুত করতে সাহায্য করে। জিংক শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। ফসফরাস মজবুত হাড় ও দাঁতের জন্য জরুরি। আয়রন রক্তস্বল্পতা সমস্যা দূর করতে এবং শরীরের সব কোষে অক্সিজেন সরবরাহে সাহায্য করে।

এ ছাড়া গরুর মাংস থেকে পাওয়া বি১২, বি৬ এবং বিরোফ্রাবিন শরীরে শক্তি সরবরাহে সাহায্য করে। অতিরিক্ত গরুর মাংস খেলে রক্তে চর্বির মাত্রা বেড়ে যেতে পারে, যা হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায়। বিশেষ করে গরুর মাংসের ঝোল বা স্টক থেকে প্রচুর সম্পৃক্ত চর্বি পাওয়া যায়, যা রক্তনালিতে জমে এথেরোসক্লেরসিস ঘটাতে পারে যা থেকে পরবর্তীকালে স্ট্রোক বা হার্ট অ্যাটাক হতে পারে। গরুর মাংসের অতিরিক্ত সোডিয়াম শরীরের জন্য ক্ষতিকর।

বিশেষ করে উচ্চ রক্তচাপ সৃষ্টিতে বা বাড়াতে সোডিয়াম সাহায্য করে। গরুর মাংস প্রথম শ্রেণীর প্রোটিনের ভালো উৎস। তাই অতিরিক্ত গরুর মাংস খেলে তা থেকে প্রাপ্ত প্রোটিন কিডনি রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। তবে গরুর মাংস পরিমিত খাওয়াটা শরীরের জন্য ভালো। – সুত্র ওয়েবসাইট

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: