Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, জয় শূন্য মুম্বাই
নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, জয় শূন্য মুম্বাই
নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, জয় শূন্য মুম্বাই

নায়ক হতে পারলেন না মুস্তাফিজ, জয় শূন্য মুম্বাই

মুম্বাই ইন্ডিয়ান্স এর ঘরের মাঠে ডিল্লিকে ১৯৪ রানের বড় টার্কেট ছুড়ে দেন। কিন্তু ডিল্লি জবাবটা দিয়েছে বাঘের মতই। শুরুটাও করেছিলেন ঝড়ো হাওয়ায়। তবে কার্যকর ভুমিকায় ছিলেন বাংলাদেশি পেসার মুস্তাফিজ। শেষ ওভারে জয়ের জন্য ডিল্লির প্রয়োজন মাত্র ১১ রান। আর সেই মূহুর্তে শেষ ওভারে বল তুলে দেন এই কাটার মাস্টারের হাতে। নিজেকে মেলে ধরার বেশ সুজোগ ছিলো ফিজের। কিন্তু ব্যর্থ হন তিনি। ফলে ফিজের আর নায়ক হওয়া হলো না।বিপরিতে টানা ৩য় হারের স্বাদ ভোগ করেন মুম্বাই।

পরাপর দুটি বলে বাউন্ডারীতে স্কোর লেভেল করেন ডিল্লি। জয়ের জন্য দরকার তখন মাত্র ১ রান ওভারে বল বাকি চারটি। কিন্তু মুস্তাফিজের পরের তিন বল ব্যাটেই লাগাতে পারলেন না ইংলিশ ব্যাটসম্যান। ১ বলে দরকার ১।

ম্যাচে তখন টান টান উত্তেজনা। প্রশ্ন একটাই ডট বল করতে পারবেন মুস্তাফিজ? ১টি বল ডট মানে ম্যাচ সুপার ওভারে। কিন্তু শেষ রক্ষা আর হলো না। মুস্তাফিজ বলটি দিলেন অফ কাটারে। কাভারে বল মানেই বল আকাশে তুললেন রয়। শেষ বলের জন্য সব খেলোয়াড়ই ফিল্ডিং এ এসেছিলেন ৩০ গজ বৃত্তের ভেতরে। বল পড়ল তাই ‘নো ম্যানস ল্যান্ডে’, ১ রান। আবারো শেষ বলে হার মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের। এনিয়ে হারের ট্যাট্রিক মুম্বাইয়ের।

এর আগে টস হেরে আগে ব্যাট করতে নেমে তিন টপ অর্ডার ব্যাটসম্যানের দৃঢ়তায় নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেটে ১৯৪ রান করেছিল মুম্বাই। ওপেনিংয়ে নেমে সর্বোচ্চ ৫৩ রান করেন সূর্যকুমার যাদব। তার ৩২ বলের ইনিংসে ছিল ৭টি চার ও একটি ছক্কার মার। এভিন লুইসের সঙ্গে যাদবের ১০২ রানের উদ্বোধনী জুটিই মুম্বাইয়ের বড় সংগ্রহের ভিত গড়ে দিয়েছিল।

লুইস ২৮ বলে ৪টি করে চার ও ছক্কায় করেন ৪৮ রান। তিনে নামা ইশান কিশানের ব্যাট থেকে আসে ২৩ বলে ৪৪ রান। এ ছাড়া রোহিতের ১৮ ও পান্ডিয়ার ১১ রানে বড় পুঁজি পায় মুম্বাই। কিন্তু সেটি জয়ের জন্য যথেষ্ট হলো না।

আরো পড়ুন-

কলকাতার বিপক্ষে জ্বলে উঠলেন সাকিব

ভারত-পাকিস্তান বিবাদ মেটাবে আইসিসির বিশেষ কমিটি

আইপিএলে হায়দরাবাদের হয়ে ফিরছেন ওয়ার্নার!

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: