Home » বাংলাদেশ » অপরাধ » প্রাণ দিতে হলো এইচএসসি পরীক্ষার্থীর!!!

প্রাণ দিতে হলো এইচএসসি পরীক্ষার্থীর!!!

ডেটিংয়ে নিয়ে ধর্ষণের পর প্রাণ দিয়েছে এইচএসসি পরীক্ষার্থী। বয়ফ্রেন্ডের এমন প্রতারণায় সোমবার (০২ এপ্রিল) এইসএসসি পরীক্ষায় অংশ নেয়া সম্ভব হয়নি ওই ছাত্রীর। পরীক্ষার আগের দিন না ফেরার দেশে চলে গেছে সে। কিশোরগঞ্জ সরকারি মহিলা কলেজের বিজ্ঞান শাখার ছাত্রী শান্তা ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেচিয়ে আত্মহত্যা করেছেন বলে পারিবারিক সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, কিশোরগঞ্জ সদর উপজেলার লতিবাবাদ ইউনিয়নের ব্রাহ্মনকচুরী গ্রামের বাসিন্দা ফিরোজ মিয়ার মেয়ে কলেজ পড়ুয়া শান্তার সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক ছিলো প্রতিবেশী লাল মিয়ার মাস্টার্স পড়ুয়া ছেলে মাইনুল হোসেনের।

গত ২৫ মার্চ ওই ছাত্র শান্তাকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে ডেটিংয়ে নিয়ে ধর্ষণ করে। পরে এক পর্যায়ে শান্তাকে বিয়ে করা সম্ভব নয় বলে ফোন করে জানায় মাইনুল। এইকথা শুনে ২৬ মার্চ সকাল ৯টার দিকে নিজ ঘরে ফ্যানের সঙ্গে ওড়না পেঁচিয়ে আত্মহত্যার চেষ্টা করে শান্তা। পরে থাকে মুমূর্ষু অবস্থায় উদ্ধার করে কিশোরগঞ্জ সদর হাসপাতালে ভর্তি করে পরিবারের লোকজন। অবস্থার অবনতি হলে তাকে সদর হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করা হয়। পরে হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে ঢাকায় প্রেরণ করেন।

কিন্তু ঢাকা মেডিকেল কলেজে আইসিইউ বেড না পাওয়ায় তাকে ভর্তি করা হয় জাপান-বাংলাদেশ ফেন্ডশীপ হাসপাতালে। সেখানে দুই দিন চিকিৎসাধীন থাকার পর ভর্তি করা হয় সেন্ট্রাল হসপিটালে। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন থাকা অবস্থায় গত রোববার দুপুরে মৃত্যু হয় শান্তা আক্তারের। শান্তার ভাই মিজান মিয়া জানান, এঘটনায় মামলা করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: