Home » জাতীয় » বাড়ছে তীব্র শীত, ২৪ ঘন্টায় ৭ জনের মৃত্যু
বাড়ছে তীব্র শীত, ২৪ ঘন্টায় ৭ জনের মৃত্যু
বাড়ছে তীব্র শীত, ২৪ ঘন্টায় ৭ জনের মৃত্যু

বাড়ছে তীব্র শীত, ২৪ ঘন্টায় ৭ জনের মৃত্যু

দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে শীতের দাপট এখন আরো ভয়ংকরে রূপ নিয়েছে।তীব্র শীতে জীবন এখন অতিষ্ট হয়ে দারিয়েছে। কুড়িগ্রাম, রংপুর, সুনামগঞ্জের ছাতক ও কিশোরগঞ্জের মিঠামইনে শিশু বৃদ্ধসহ মৃত্যের সংখ্যা দাড়িয়েছে ৭।

কুড়িগ্রামে আবারও তাপমাত্রা কমেছে। রাজারহাট কৃষি ও সিনপটিক আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার শুক্রবার সকালে সর্বনিম্ন তাপমাত্রা ৭ দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস রেকর্ড করেছে।

তীব্র শতের আঘাতে কুড়িগ্রামে সর্দি-কাশি-জ্বর-শ্বাসকষ্ট-ডায়রিয়া-নিউমোনিয়াসহ শীতজনিত রোগের প্রকোপ বেড়েই চলেছে। এসব রোগে শিশু ও বৃদ্ধরা আক্রান্ত হচ্ছে বেশি। ফলে হাসপাতালের বহির্বিভাগ ও জরুরি বিভাগে এখন রোগীদের উপচেপড়া ভিড়। এ হাসপাতালে আরও ৩ জনের মৃত্যু ঘটেছে। এ নিয়ে শীতজনিত রোগে এই হাসপাতালে গত ১২ দিনে ১৪ জনের মৃত্যু হয়েছে।

ছাতকে সিংচাপইড় গ্রামে চাউলি হাওরে কৃষি কাজ করতে গিয়ে শীতের তীব্র আঘাতে আবদুল মনাফ (৬০) নামের এক কৃষকের মৃত্যু হয়েছে। বৃহস্পতিবারে হাওরে তিনি ধানের চারা রোপন করতে যায় দিন গড়িয়ে বিকেলে সাড়ে ৪টার দিকে ঠাণ্ডায় আবদুল মনাফের হাত-পা অবশ হয়ে অসুস্থ হয়ে পড়লে তাকে অন্য কৃষকরা স্থানীয় হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়।

মিঠামইন উপজেলার কাঠখাল ইউনিয়নের শান্তিপুর গ্রামে ঠাণ্ডাজনিত রোগে রাজীব (১) নামের এক শিশুর মৃত্যু হয়েছে।  উপজেলার ঢাকি ইউনিয়নের সোনাপুর গ্রামের শিমুল (৬ মাস) নামের আরেকটি নবাগত  শিশুর মৃত্যু হয়।

এছাড়াও উপজেলার হাসপাতালগুলোতে ব্যপক হাড়ে বেরেই চলেছে ঠান্ডাজনিত রোগী। শিশু থেকে শুরু করে বৃদ্ধ প্রায় হাজার হাজার মানুষ ভিড় জমাচ্ছে চিকিৎসার জন্য।

শুক্রবার রংপুরে তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ৪ ডিগ্রি সেলসিয়াস। বৃহস্পতিবার তাপমাত্রা ছিল ৭ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস।

রংপুরে ঠাণ্ডায় আগুন পোহাতে গিয়ে আবদুল করিম (৫০) নামের এক ব্যক্তি আগুনে পুরে মারা যায়। এ নিয়ে রংপুর মেডিকেল কলেজে অগ্নিদগ্ধ হয়ে মৃত্যের সংখ্যা দাঁড়াল ৭ জনে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: