Home » বিশ্ব » বিচারক লোয়ার অকস্মিক মৃত্যু: দায়ী হলেন অমিত শাহ
বিচারক লোয়ার অকস্মিক মৃত্যু দায়ী হলেন অমিত শাহ
বিচারক লোয়ার অকস্মিক মৃত্যু দায়ী হলেন অমিত শাহ

বিচারক লোয়ার অকস্মিক মৃত্যু: দায়ী হলেন অমিত শাহ

কংগ্রেস ভারতের ক্ষমাতসীন দলের বিজেপির সভাপতি অমিত শাহকে দায়ী করে বলেন,তিনিই ভারতের বিশেষ সেন্ট্রাল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (সিবিআই) আদালতের বিচারক ব্রিজগোপাল হরকিষণ লোয়ার মৃত্যুর পেছনে তার হাতছিল।বিচারক লোয়ার মৃত্যুর ঘটনায় অমিত শাহের বিরুদ্ধে নতুন করে ফৌজদারি মামলা করতে হবে করতে হবে এই দাবী পেশ করের কংগ্রেস।

ফৌজদারি মামলায় অমিত শাহের নাম রয়েছে একথা বলেন গোয়ার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শান্তারাম নায়েক, ।ওই মামলাটি নতুন করে খোলা দরকার বলে জানান সুপ্রিম কোর্টের চর প্রবীণ বিচারপ্রতি। নাগপুরে বিচারক লোয়ার রহস্যজনক মৃত্যুও ফের খতিয়ে দেখা উচিত।

শুক্রবার প্রধান বিচারপতি দীপক মিশ্রের বিরুদ্ধে বিচারক লোয়ার মৃত্যুরহস্যে নিরপেক্ষ তদন্ত দাবির মামলা নিয়েই  গোয়ার প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি শান্তারাম নায়েক বলেছেন, চার প্রবীণ বিচারপতি নজিরবিহীন সংবাদ সম্মেলন করেন। এরপর আবার এই বিষয়টি নিয়ে আলোচনায় আসে।

প্রধান বিচারপতি এই মামলাটি অরুণ মিশ্রের বেঞ্চে পাঠিয়েছিলেন বলে বাকিরা এই নিয়ে প্রশ্ন তোলেন ।

ভারতের প্রবীণ আইনজীবী দুষ্মন্ত দাভে টিভি চ্যানেলে এক সাক্ষাৎকারে বলেছেন, কে না জানে, বিচারপতি অরুণ মিশ্র বিজেপি নেতাদের ঘনিষ্ঠতার বিষয়ে কে না জানে এই বিষটি নিয়ে,ভারতের প্রবীণ  আইনজীবি দুরন্ত দভে টিভি চ্যানেলের একসাক্ষাৎকারে একথা  বলেন।

কোন মামলা কোন বিচার প্রতি শুনবে ,তা ঠিক করার প্রক্রিয়া নিয়ে সংসদে প্রশ্ন তোলা যায় না বলে জানান কংগ্রেস নেতা শান্তারাম ।তাহলে সরকার কীভাবে নিজের ক্ষমতা কাজে লাগাচ্ছে?

২০১৪ সালের ১ ডিসেম্বর বিচারক লোয়ার মৃত্যু হয় । মুম্বাইয়ের বাসিন্দা ৪৮ বছর বয়সী লোয়া সেই সময়ে একটি মামলাই শুনছিলেন। তাহলো ২০০৫ সালে গুজরাট পুলিশের বিরুদ্ধে সংঘর্ষে সোহরাবুদ্দিন শেখকে হত্যার অভিযোগের মামলা। তখন গুজরাটের স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন অমিত শাহ ।

সিবিআইয়ের চার্জশিটে প্রধান অভিযুক্ত হিসেবে অমিতের নাম ছিল। বিচারক লোয়ার আকস্মিক মৃত্যু হয় নাগপুরে একটি বিয়ের অনুষ্ঠানে গিয়ে।

হৃদরোগে মৃত্যু হয় তার একথা বলা হয় ময়নাতদন্তের রিপোর্ট অনুযায়ী, । মৃত্যুর কয়েক দিন আগে লোয়াকে ১০০ কোটি টাকা ঘুষের প্রস্তাব দেয়া হয়েছিল কিন্তু তিনি তা প্রত্যাখান করেন এ অভিযোগ তুলেন ,প্রয়াত বিচারকের পরিবার

ওই মামলাটি গুজরাট থেকে মহারাষ্ট্রে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল সুপ্রিম কোর্টের নির্দেশেই । শুনানি শেষ হওয়ার আগে বিচারককে বদলি না করার নির্দেশও দিয়েছিল সর্বোচ্চ আদালত। তা সত্ত্বেও লোয়ার পূর্বসূরি, বিচারক জে টি উটপতকে বদলি করে দেয়া হয়।

বিচারক এম বি গোসাভি ২০১৪ সালের ডিসেম্বরের শুরুর দিকে বিচারক লোয়ার মৃত্যু হলে মামলার দায়িত্ব পান ।অমিতকে ওই মাসের শেষেই তিনি  বেকসুর খালাস করে দেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: