Home » এশিয়া » মিয়ানমারে এবার কিচিনদের উপর অত্যাচার শুরু
মিয়ানমারে এবার কিচিনদের উপর অত্যাচার শুরু
মিয়ানমারে এবার কিচিনদের উপর অত্যাচার শুরু

মিয়ানমারে এবার কিচিনদের উপর অত্যাচার শুরু

মিয়ানমারের সেনারা রোহিঙ্গা মুলিমদের বিতাড়িত করার পর এবার দেশটির উত্তর-পূর্বাঞ্চলের কিচিন আদিবাসী খ্রিস্টান জনগোষ্ঠীর ওপর অত্যাচার শুরু করেছে। এপ্রিলের প্রথম থেকেই চীন ও ভারত সীমান্তের ওই প্রদেশের প্রায় চার হাজার লোককে সেনা-সদস্যরা তাদের ঘরবাড়ি ছাড়তে বাধ্য করেছে।

অন্যদিকে রয়টার্স জানিয়েছে, চলতি মাসের প্রথমদিকে সেনাবাহিনী ও কিচিন বিদ্রোহীদের মধ্যে নতুন করে লড়াই শুরু হওয়ার পর তাদের এলাকাছাড়া করা হয়েছে বলে অভিযোগ কিচিনভিত্তিক সিভিল সোসাইটি গ্রুপগুলোর।

২০১১ সালে ১৭ বছর ধরে চলা অস্ত্রবিরতি ভেঙে পড়ে। এরপর থেকে পর্বতময় এলাকাটিতে মিয়ানমারের সবচেয়ে প্রভাবশালী বিদ্রোহী গোষ্ঠী কিচিন ইন্ডিপেনডেন্স আর্মির (কেআইএ) সঙ্গে মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীগুলোর নিয়মিত সংঘর্ষ চলে আসছে।

গত শুক্রবার কেআইএ-র এক মুখপাত্র বার্তা সংস্থা জানিয়েছেন, বিদ্রোহী গোষ্ঠীটির সঙ্গে মিয়ানমারের সরকারি বাহিনীর লড়াই আরও তীব্র হয়ে উঠতে পারে। এতে ওই এলাকার পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ এবং আশঙ্কাজনক হয়ে উঠতে পারে।

জাতিসংঘের কো-অর্ডিনেশন অব হিউম্যানিটারিয়ান অ্যাফেয়ার্স (ওসিএইচএ) বিষয়ক দপ্তরের প্রধান মার্ক কাটস বলেছেন, ‘বেসামরিক লোকদের সুরক্ষা নিয়ে আমরা সবচেয়ে বেশি শঙ্কিত; যাদের মধ্যে অন্তঃসত্ত্বা নারী, বয়োবৃদ্ধ, শিশু ও প্রতিবন্ধীরা রয়েছেন।’

দক্ষিণ- পশ্চিমাঞ্চলের রোহিঙ্গা সংকট ছাড়াও মিয়ানমারে বিভিন্ন আদিবাসী সংখ্যালঘুদের উপর সংঘাত লেগেই আছে। বৌদ্ধপ্রধান মিয়ানমারের কিচিনরা প্রধানত খ্রিস্টান। নিজেদের অধিকার প্রতিষ্ঠা জন্য ১৯৬১ সাল থেকেই এরা সরকারের বিরুদ্ধে লড়াই করে আসছে। এই লড়াইয়ে প্রায় ২০ হাজার মানুষ ঘরবাড়ি ছাড়া হয়েছে।

অধিকার আন্দোলনকারী গোষ্ঠীগুলোর বক্তব্য, বিশ্বের নজর যখন মিয়ানমারের রোহিঙ্গা সংকটের দিকে, যে সংকটের কারণে প্রায় সাত লাখ রোহিঙ্গা মুসলিম পালিয়ে বাংলাদেশে আশ্রয় নিয়েছে, তখনই মিয়ানমারের সেনাবাহিনী কিচিনদের বিরুদ্ধে অভিযান জোরদার করেছে।

তাদের এই বক্তব্যে কিচিনে নিপীড়ন বন্ধ করতে দেশটির কর্তৃপক্ষের প্রতি আহ্বান জানিয়েছে, জাতিসংঘ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: