Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » শান্ত-নাসিরের জোড়া সেঞ্চুরি এবং মাশরাফির ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রান পাহাড়ে আবাহনী!
শান্ত-নাসিরের জোড়া সেঞ্চুরি এবং মাশরাফির ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রান পাহাড়ে আবাহনী!
শান্ত-নাসিরের জোড়া সেঞ্চুরি এবং মাশরাফির ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রান পাহাড়ে আবাহনী!

শান্ত-নাসিরের জোড়া সেঞ্চুরি এবং মাশরাফির ঝড়ো ব্যাটিংয়ে রান পাহাড়ে আবাহনী!

এবারের ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে শিরোপা জয়ের নিশায় বিভোর থাকা আবাহনী আজ শেষ ম্যাচে লিজেন্ড অফ রুপগঞ্জের বিপক্ষে মাঠে নেমেছিল। আর মাঠে নেমেই শান্ত নাসির এবং মাশরাফির ব্যাটিং ঝড়ে প্রায় উড়ে গেছে আবাহনীর বিপক্ষ দল।

এদিকে পুরো মৌসুমে দুর্দান্ত খেলা নাজমুল হোসেন শান্ত আবাহনীর হয়ে ঢাকা প্রিমিয়ার লিগে নিজেদের শেষ ম্যাচে আরেকটি সেঞ্চুরির দেখা পেলেন। এবারই তার ব্যাট থেকে এসেছে চারটি সেঞ্চুরি। এ মৌসুমেই সর্বোচ্চ পাঁচটি সেঞ্চুরি করে রেকর্ড গড়েছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল।

অপরদিকে আবাহনীর অধিনায়ক নাসির হোসেনও এদিন সেঞ্চুরির দেখা পেয়েছেন। চলতি মৌসুমে এটি তার প্রথম সেঞ্চুরি। এ দু’জনের ব্যাটে ভর করে রূপগঞ্জের বিপক্ষে নির্ধারিত ৫০ ওভার শেষে ৬ উইকেট হারিয়ে ৩৭৪ রান করেছে আবাহনী।

শিরোপার লড়াইয়ের এ ম্যাচে বিকেএসপির ৩ নম্বর মাঠে লিজেন্ডস অব রূপগঞ্জের মুখোমুখি হয় আবাহনী লিমিটেড। যেখানে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করতে নামেন এনামুল-নাসিররা। আবাহনী এ ম্যাচ জিতলে এবং মিরপুর শের-ই-বাংলায় শেখ জামাল খেলাঘরের বিপক্ষে হেরে গেলেই চ্যাম্পিয়নের মুকুট পড়বে আবাহনী।

এরকম এক প্রেক্ষাপটে ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুটা দারুণ করেন দুই ওপেনার এনামুল হক বিজয় ও শান্ত। ৯২ রানের জুটি গড়েন তারা। তবে ব্যক্তিগত ৫৭ রানে বিজয় বিদায় নেন। কিন্তু এ মৌসুমে উড়তে থাকা ১৯ বছরের তরুণ শান্ত ঠিকই সেঞ্চুরি তুলে নেন। ৯৭ বলে তিন অঙ্কের ঘরে পৌঁছান তিনি। এ সময় ১০টি চার ও ২টি ছক্কা হঁকান তিনি।

এ মৌসুমে এর আগে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে অপরাজিত প্রথম সেঞ্চুরিটি (১৩৩) করেন শান্ত। পরে শাইনপুকুরের বিপক্ষে ফের অপরাজিত থেকে করেন ক্যারিয়ার সেরা ১৫০ রান। আর এ ম্যাচের আগে প্রাইম দোলেশ্বরের বিপক্ষে ১২১ রানের ইনিংস খেলেন। এ নিয়ে লিস্ট ‘এ’ ক্যারিয়ারে এটি শান্তর ষষ্ঠ সেঞ্চুরি। পরে ১০৭ বলে ১১টি চার ও ২টি ছক্কায় ১১৩ করে মোহাম্মদ শহীদের বলে এলবি হন।

এছাড়া লিগের শেষ ম্যাচে এসে জ্বলে উঠলেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকটোর নাসির হোসেন।যেখানে লিস্ট ‘এ’ তে ক্যারিয়ারে ষষ্ঠ ও চলতি মৌসুমে নিজের প্রথম সেঞ্চুরির দেখা পেলেন আবাহনী দলনেতা নাসির হোসেন। ৮০ বলে সেঞ্চুরি পূর্ণ করেন তিনি। এ সময় তার ইনিংসে ছিল ১২টি চার ও ৩টি ছক্কা। শেষ পর্যন্ত তিনি ৯১ বলে ১৫টি চার ও ৪টি ছক্কায় ঝড়ো ১২৯ রানের ইনিংস খেলে বিদায় নেন।

শেষ দিকে আবাহনীর ইনিংস বড় করার সুযোগ কাজে লাগান মোসাদ্দেক হোসেন সৈকত ও মাশরাফি বিন মর্তুজা। বিশেষ করে মাশরাফির ব্যাটই ধারালো হয়ে ওঠে। মাত্র ৮ বলে ৪টি বিশাল ছক্কায় অপরাজিত থেকে করেন ২৮ রান। সৈকত ১৪ বলে ২টি চারের সাহায্যে ১৯ করে মাঠ ছাড়েন।

রূপগঞ্জ বোলারদের মধ্যে ভারতীয় রিক্রুট পারভেজ রসুল সর্বোচ্চ ৩টি উইকেট নেন। শহীদ পেয়েছেন ২টি উইকেট। এখন দেখার বিষয় যে আবাহনীর দেওয়া ৩৭৫ রানের টার্গেটে রুপগঞ্জ কতদুর পর্যন্ত যেতে পারে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: