Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » 2017 শেষে ভারত-পাকিস্তানের প্রাপ্তি
2017 seshe prapti

2017 শেষে ভারত-পাকিস্তানের প্রাপ্তি

ওয়ানডে ও টি-টোয়েন্টি ক্রিকেট মিলিয়ে এ বছর সবচেয়ে ভালো পারফরম্যান্স ছিল পাকিস্তানের। ভারত-ইংল্যান্ডের মতো দলগুলোকে হারিয়ে র‍্যাংকিংয়ের অষ্টম দল হিসেবে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতেছে সরফরাজ আহমেদের দল। বছরে খেলা ১৮টি ওয়ানডের ১২টিতেই জিতেছে দলটি। জয়ের ক্ষেত্রে শতাংশের দিক থেকে অবশ্য এগিয়ে ভারত। ২৯টি ওয়ানডের ২১টিতেই জিতেছেন কোহলি-ধোনিরা।

টি-টোয়েন্টিতেও সবার চেয়ে এগিয়ে পাকিস্তান। এ বছর খেলা ১০টি টে-টোয়েন্টি ম্যাচের আটটিতেই জিতেছে দলটি। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে আফগানিস্তান। ১০ ম্যাচের সাতটিতে জিতেছে টেস্ট ক্রিকেটের নবীনতম দলটি। টি-টোয়েন্টিতে এ বছর ভালো খেলেছে ভারতও। ১৩ ম্যাচের নয়টিতে জিতেছে কোহলি-রোহিত শর্মার দল।

ব্যাট হাতে টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে বছরটা এভিন লুইস ও এবি ডি ভিলিয়ার্সের। ক্যারিবীয়দের হয়ে ৯টি টি-টোয়েন্টি খেলে ৩৫৭ রান করেছেন লুইস। অন্যদিকে ৭ ম্যাচে এবির রান ৩০৪। বছরটা বাবর আজমেরও। ১০ ম্যাচে পাকিস্তানি এই ব্যাটসম্যান করেছেন ৩৫৪ রান। এ ছাড়া পাকিস্তানে আহমেদ শেহজাদ ও আফগানিস্তানের মোহাম্মদ শেহজাদও ব্যাট হাতে আলো ছড়িয়েছেন।

ওয়ানডে ক্রিকেটে বছরটা হাসান আলীর। দুর্দান্ত বোলিং করে পাকিস্তানকে চ্যাম্পিয়নস ট্রফি জিতিয়েছেন তিনি। এই বছর ১৮ ম্যাচে নিয়েছেন ৪৫ উইকেট। অন্যদিকে কোনো অংশেই কম যাচ্ছেন না আফগান রহস্য মানব রশীদ খান। ১৬ ম্যাচে রশিদ নিয়েছেন ৪৩ উইকেট। রশিদের গড়টা বিস্ময়কর। প্রতিটি উইকেট নিতে মাত্র ১০ রান খরচ করেছেন তিনি। অন্যদিকে প্রতি উইকেট নিতে হাসানকে দিতে হয়েছে ১৭ রানের বেশি।

অন্য কারণেও পাকিস্তানের কাছে এই বছরটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। দীর্ঘ কয়েক বছর পর আবার আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফিরেছে দেশটিতে। বিশ্ব একাদশ ও শ্রীলঙ্কার মতো দলগুলো পাকিস্তান সফর করেছে। আশা করা হচ্ছে, দ্রুতই বড় দলগুলোও পাকিস্তানে খেলতে রাজি হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: