Home » বিশ্ব » আরব দুনিয়া » ইসরায়েলি বরবর হত্যাকাণ্ডে রেহায় পেলনা ৮ মাসের শিশুটিও!
ইসরায়েলি বরবর হত্যাকাণ্ডে রেহায় পেলনা ৮ মাসের শিশুটিও!
ইসরায়েলি বরবর হত্যাকাণ্ডে রেহায় পেলনা ৮ মাসের শিশুটিও!

ইসরায়েলি বরবর হত্যাকাণ্ডে রেহায় পেলনা ৮ মাসের শিশুটিও!

গাজা সীমান্তে ইসরায়েলি সেনাদের অমানবিক হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় রেহাই পেল না ৮ মাসের শিশুটি। প্রাণহীন নিশপাপ শিশুর মৃতদেহ জরিয়ে কাদছেন ফিলিস্তিনি মা। আর্ন্তজাতিক সংবাদমাধ্যম গুলোতে বলা হচ্ছে , ইসরায়েলি সেনাদের কাঁদানে গ্যাসে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে প্রাণ হারায় শিশুটি।

তথ্যসুচিতে জানা যায়, ইসরায়েলি সেনাদের গুলিতে এ পর্যন্ত নিরপরাধ ফিলিস্তিনিদের মধ্যে নিহতদের মধ্যে ১৬ বছরের কম বয়সের ৮টি শিশু রয়েছে। যাদের মধ্যে সবচেয়ে কম বয়স (৮ মাস) ছিল লাইলার। এদিকে, গতকাল মঙ্গলবার জাতিসংঘে এ ঘটনায় নিন্দা জানিয়েছে রাশিয়াও চীন। তাছাড়া, ইসরাইলি সেনাদের এ হত্যাকাণ্ড মানবাধিকারের সর্বোচ্চ লঙ্ঘন এবং তা যুদ্ধাপরাধ বলে জানিয়েছে লন্ডনভিত্তিক মানবাধিকার সংগঠন অ্যামনেস্টি ইন্টারন্যাশনাল।

নিহত ৮ মাসের শিশু লাইলার’র ব্যাপারে দেশটির স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, তেলআবিব থেকে জেরুজালেমে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস স্থানান্তর উদ্বোধনের সময় বিক্ষোভে ইসরাইলি কাঁদানে গ্যাসে শ্বাসরুদ্ধ হয়ে শিশুটি মারা গেছে।

ইসরায়েলি সৈন্যদের গুলিতে ফিলিস্তিনিদের অকাতরে হত্যার পর তুরস্ক এই ঘটনাকে হত্যাযজ্ঞ বলে বিবৃতি করেছে। আর মিশর অভিযোগ করেছে, ইসরায়েল ফিলিস্তিনি বেসামরিক নাগরিকদের টার্গেট করছে। জাতিসংঘের মানবাধিকার বিষয়ক কমিশনার জেইদ বিন রাদ জেইদ আল হুসেইন এই বিষয়ে বলেছেন, যারা এ জঘন্য মানবাধিকার লঙ্ঘনের জন্য দায়ী, তাদের অবশ্যই জবাবদিহি করতে হবে।

তবে এই ঘটনার পরিপেক্ষিতে ফিলিস্তিনি কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, তেল আবিব থেকে মার্কিন দূতাবাস জেরুসালেমে সরিয়ে নেওয়ার ঠিক কয়েক ঘণ্টা আগে ফিলিস্তিনি বিক্ষোভকারীদের উপর ইসরায়েলি বাহিনী গুলি চালায়। গত কয়েক সপ্তাহ ধরেই গাজা-ইসরায়েল সীমান্তে ফিলিস্তিনিদের বিক্ষোভ চলছে।

উল্লেখ্য যে,যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাসকে সরিয়ে নেওয়ার ব্যাপারে তাদের মতামতকে স্বাগত জানিয়েছে ইসরায়েল। কিন্তু ইউরোপসহ সারা বিশ্বের বিভিন্ন দেশ এর তীব্র নিন্দা প্রকাশ করেছেন। তেল আবিব থেকে যুক্তরাষ্ট্রের দূতাবাস জেরুসালেমে সরিয়ে নেওয়ার সিদ্ধান্ত হওয়ার পর থেকেই ফিলিস্তিনিরা এর বিরুদ্ধে বিক্ষোভ করে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: