Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » কুকের সেরা দলে জায়গা হলো না পাকিস্তান-ভারতের কোন খেলোয়াড়
কুকের সেরা দলে জায়গা হলো না পাকিস্তান-ভারতের কোন খেলোয়াড়

কুকের সেরা দলে জায়গা হলো না পাকিস্তান-ভারতের কোন খেলোয়াড়

টেস্ট ক্রিকেটকে গুডবাই জানিয়ে দিয়েছেন ইংল্যান্ডের তারকা ক্রিকেটার অ্যালিস্টার কুক। ভারতের বিরুদ্ধে ওভাল টেস্টের পরই সাদা পোশাকে আর দেখা যাবে না টেস্টের ইতিহাসে ষষ্ঠতম সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক ৩৩ বছর বয়সী এই ব্যাটসম্যানকে। তবে ক্যারিয়ারের বিদায়ী টেস্টে নামার আগে তিনি বেছে নিলেন তার দেখা সর্বকালের সেরা দল। তবে আশ্চর্যের বিষয়, তার দলে নেই কোন ভারতীয় বা পাক ক্রিকেটার। দেখে নিন কুকের পছন্দের সেই দল।

কুকের দলের অধিনায়ক গ্রাহাম গুচ। যিনি তার কোচ এবং মেন্টর। কুকের ক্যারিয়ারে বিশাল অবদান রয়েছে গুচের। নিজের বেছে নেওয়া দলের ওপেনার করেছেন গুচকে। ৬৫ বছর বয়সী ১১৮ টেস্টে ৪৯.২৩ গড়ে করেছেন ৮৯০০ রান। রয়েছে ২০ শতরান ও ৪৬ অর্ধশতরান। ইংল্যান্ডের হয়ে টেস্টে সর্বাধিক রানসংগ্রহকারীর তালিকায় তিনি দুইয়ে।

গুচের ওপেনিং পার্টনার হিসেবে কুক বেছে নিয়েছেন অস্ট্রেলিয়ার প্রাক্তন ওপেনার ম্যাথু হেডেনকে। বাঁ-হাতি হেডেনকে নেওয়ায় ডান হাতি-বাঁ হাতি কম্বিনেশনও রইল। ১০৩ টেস্টে ৫০.৭৩ গড়ে হেডেন করেছেন ৮৬২৫ রান। সর্বাধিক ৩৮০। শতরানের সংখ্যা ৩০। অর্ধশতরান ২৯। এই দলে নিজেকে রাখেননি কুক।

মিডল অর্ডারে কারো জায়গা নির্দিষ্ট করেননি কুক। তাবে তার দলে আছেন ব্রায়ান লারা। ত্রিনিদাদের রাজপুত্র ১৩১ টেস্টে ১১৯৫৩ রান করেছেন। গড় ৫২.৮৮। সর্বোচ্চ অপরাজিত ৪০০। শতরানের সংখ্যা ৩৪। অর্ধশতরান ৪৮। ওয়েস্ট ইন্ডিজ ব্যাটিংয়ের প্রধান ভরসা ছিলেন লারা।

রিকি পন্টিং হলেন ডন ব্র্যাডম্যানের পরে অস্ট্রেলিয়ার সবচেয়ে সফল ব্যাটসম্যান। রানের দিক থেকে অবশ্য তিনি অস্ট্রেলিয়ার হয়ে সর্বাধিক রানসংগ্রহকারী। ১৬৮ টেস্টে ৫১.৮৫ গড়ে করেছেন ১৩৩৭৮ রান। সর্বোচ্চ ২৫৭। শতরান করেছেন ৪১টি। অর্ধশতরান ৬২। পন্টিংয়ের বিরুদ্ধে অনেকবার খেলেছেন কুক।

এবি ডি ভিলিয়ার্সকে বলা হয় তিনশো ষাট ডিগ্রির ব্যাটসম্যান। যেকোন বলকে যেকোন জায়গায় পাঠানোর বিরল ক্ষমতা ছিল তার। উইকেটের সব দিকেই শট মারতে পারেন। ১১৪ টেস্টে ৫০.৬৬ গড়ে ৮৭৬৫ রান করেছেন তিনি। শতরানের সংখ্যা ২২। অর্ধশতরান ৪৬টি। উইকেটকিপিংও করতে পারেন ডি’ভিলিয়ার্স। কুক অবশ্য দলে কুমার সঙ্গাকারাকেও রেখেছেন।

কুক তার দলে উইকেটকিপার হিসেবে কাউকে নির্দিষ্ট করে বেছে নেননি। ডি ভিলিয়ার্সের পাশাপাশি কুমার সঙ্গাকারাকেও রেখেছেন দলে। বলেছেন, দু’জনের মধ্যে যেকোন একজন কিপিং করবেন। সঙ্গা অবশ্য ব্যাটসম্যান হিসেবেও খেলতে পারেন। ১৩৪ টেস্টে ১২৪০০ রান রয়েছে তার। গড় ৫৭.৪০। শতরান ৩৮, অর্ধশতরান ৫২। শ্রীলঙ্কার অধিনায়কও ছিলেন।

জ্যাক ক্যালিসকে বলা হয় সে সময়ের সেরা অলরাউন্ডার। সর্বকালের সেরা অলরাউন্ডার হিসেবে যাকে মেনে নিয়েছে ক্রিকেটবিশ্ব, সেই গ্যারি সোবার্সের সঙ্গে তুলনাও চলে তার। ১৬৬ টেস্টে ১৩২৮৯ রান, সঙ্গে ২৯২ উইকেট। অবিশ্বাস্য পরিসংখ্যান তার। ৪৫ শতরানের পাশাপাশি টেস্টে পাঁচবার নিয়েছেন পাঁচ উইকেট। সঙ্গে টেস্টে ২০০ ক্যাচ।

শেন ওয়ার্ন আবার খুব কাছাকাছিই থাকবেন মুরালিধরনের। ৪৮ বছর বয়সী ১৪৫ টেস্টে নিয়েছেন ৭০৮ উইকেট। গড় ২৫.৪১। পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ৩৭ বার। ১০ উইকেট নিয়েছেন ১০বার। ওয়ার্নের এক ডেলিভারি বিখ্যাত হয়ে রয়েছে শতাব্দীর সেরা হিসেবে। লেগব্রেককে শিল্পের পর্যায়ে নিয়ে গিয়েছেন তিনি। টেস্টে তিনিই প্রথম ৭০০ উইকেট নেন।

কুকের দলে রয়েছেন দু’জন স্পিনার। একজন শ্রীলঙ্কার অফস্পিনার মুথাইয়া মুরালিধরন। টেস্টে আটশো উইকেট নিয়েছেন তিনি। গড় মাত্র ২২.৭২। পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ৬৭ বার। ১০ উইকেট নিয়েছেন ২২বার।

কুকের দলে দুই পেসারের অন্যতম হলেন জেমস অ্যান্ডারসন। দীর্ঘ সময় ধরে দু’জনে এক সঙ্গে খেলেছেন। অ্যান্ডারসনের বলে প্রথম স্লিপে দাঁড়িয়ে একাধিক ক্যাচ ধরেছেন কুক। জানেন অ্যান্ডারসনের সুইং কতটা মারাত্মক হতে পারে। ১৪২ টেস্টে ৫৫৯ উইকেট নিয়েছেন ডানহাতি পেসার। গড় ২৬.৯০। পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ২৬বার, ১০ উইকেট নিয়েছেন তিন বার।

কুকের দলে দ্বিতীয় পেসার হলেন গ্লেন ম্যাকগ্রা। টেস্টে ৫৬৩ উইকেট নিয়েছেন তিনি। যা পেস বোলারদের মধ্যে সবচেয়ে বেশি। বিশ্বের সেরা পেসার ছিলেন তিনি। নিখুঁত টার্গেট ছিল শক্তি। পাঁচ উইকেট নিয়েছেন ২৯বার। ১০ উইকেট নিয়েছেন তিন বার। গড় মাত্র ২১.৬৪। কুকের দলে নতুন বলে শুরু করবেন ম্যাকগ্রা-অ্যান্ডারসন। পরে আসবেন ক্যালিস।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: