Home » খেলাধুলা » ক্রিকেট » ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হেসে-খেলে হোয়াইট ওয়াশ করল পাকিস্তান!
ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হেসে-খেলে হোয়াইট ওয়াশ করল পাকিস্তান!
ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হেসে-খেলে হোয়াইট ওয়াশ করল পাকিস্তান!

ঘরের মাঠে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে হেসে-খেলে হোয়াইট ওয়াশ করল পাকিস্তান!

পাকিস্তানের মাটিতে আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের কোন টুর্নামেন্ট হয় না প্রায় দীর্ঘ নয় বছর ধরে। দীর্ঘ এতো বছর ধরে দেশের মাটিতে কোন ক্রিকেট সিরিজ খেলতে না পারার আক্ষেপ এবং সেই সাথে নিজ দেশের জনগণও দেশের মাটিতে কোন ম্যাচ দেখতে পারার কারনে হয়ত একটু বেশী অগ্রাসি ছিল বাবর আজম, ফখর জামান,আমির এবং হোসাইন তালাতরা। আর এ কারনেই নিজ দেশের মাটিতে সফরকারি ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ডেকে এনে কি রকম ধবল ধোলাই না করল পাকিস্তান?

এদিকে দুই দেশের মধ্যকার তিন ম্যাচের টি-টুয়েন্টি সিরিজের মাধ্যমে করাচির  মাঠটি যেন অনেকদিন পর প্রাণ খুজে পেল। অপরদিকে তিন ম্যাচের সিরিজের মধ্যে গতকালকের ম্যাচ খেলার আগেই এক ম্যাচ হাতে রেখে টিটোয়েন্টি সিরিজটি নিজেদের করে নেয় শোয়েব মালিকরা। তাই শেষ ম্যাচটি হাসিখুশি মেজাজেই খেলতে নেমেছিল পাকিস্তান। আর সেজন্য শেষ ম্যাচটিও জিততে কোন কষ্টও করতে হয়নি পাকিস্তানকে। প্রথম দুই ম্যাচে জয়ের পর শেষ ম্যাচেও ওয়েস্ট ইন্ডিজকে বড় ব্যবধানে হারিয়েছে পাকিস্তান

গতকাল মঙ্গলবার দিবাগত রাতে করাচিতে সিরিজের তৃতীয় ও শেষ টি-টুয়েন্টি ম্যাচে স্যামুয়েলসদের উইকেটে হারিয়েছে সরফরাজ বাহিনী ফলে একেবারে খালি হাতেই পাকিস্তান থেকে ফিরতে হচ্ছে ক্যারিবীয়দের এর আগে, প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ১৪৩ রানে হারানোর পর দ্বিতীয় ম্যাচে ৮২ রানে হারায় স্বাগতিকরাআর গতকাল তাদরেকে হারাল ৮ উইকেটের বিশাল ব্যাবধানে।

এদিকে মঙ্গলবার রাতে টস জিতে ব্যাটিংয়ে নেমে মাত্র দুই রানের মাথায় ওয়ালটনের উইকেট হারিয়ে বিপদে ওয়েস্ট ইন্ডিজ। তবে দ্বিতীয় উইকেট জুটিতে ফ্লেচারস্যামুয়েলসের ৭২ রানের জুটিতে বড় রানের পথেই ছিল ক্যারিবীয়রা। কিন্তু এরপরই ক্ষতিটা হয়। ২৪ রান যোগ হতে না হকেতই নেই দলের ব্যাটসম্যান। ফ্লেচার ৪৩ বলে সর্বোচ্চ ৫২ রান করেন। এছাড়া স্যামুয়েলস ২৫ বলে ৩১ রান করেন। শেষ দিকে ব্যাট হাতে ঝড় তোলেন দিনেশ রামদিন। ১৮ বলে ছয় এবং চারের সাহায্যে করেন ৪২ রান। আর তাতেই দলের সংগ্রহ দাঁড়ায় ১৫৩ রানে

১৫৪ রানের লক্ষ্যে খেলতে নেমে পাকিস্তানকে উড়ন্ত সূচনা এনে দেন দুই ওপেনার ফখর জামান বাবর আজম। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি ভয়ংকর ছিলেন ফখর। এমরিটের বলে আউট হওয়ার আগে ম্যাচসেরা এই ওপেনারের ব্যাট থেকে আসে ১৭ বলে ৪০ রান। আর ওডিন স্মিথের বলে আউট হওয়ার আগে বাবর আজমের ব্যাট থেকে আসে ৪০ বলে ৫১ রান। এরপর আর কোনো উইকেট হারাতে দেয়নি হুসাইন তালাত (৩১) আসিফ আলী (২৫) আর তাতেই ৮ উইকেটের বিশাল জয় নিয়ে মাঠ চাড়ে পাকিস্তান।

ম্যাচের স্কোর:

ওয়েস্ট ইন্ডিজ- ১৫৩-৬(২০)

পাকিস্তান-১৫৪-২(১৬.৫)

ফলাফল: পাকিস্তান ৮ উইকেটে বিজয়ী এবং ৩-০ তে সিরিজ জয়ী।

ম্যান অবদ্যা সিরিজ- বাবর আজম

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: