Home » বিশ্ব » পাচঁ তালার ছাঁদ থেকে লাফ দিয়ে সংবাদ উপস্থাপিকার আত্মহত্যা!

পাচঁ তালার ছাঁদ থেকে লাফ দিয়ে সংবাদ উপস্থাপিকার আত্মহত্যা!

গতকাল রাতে এক ভারতীয় সংবাদ উপস্থাপিকা আত্নহত্যা করেছে। এই আত্নহত্যার ব্যাপারে জানা যায় যে নিজের ফ্ল্যাটের পাঁচ তলার ওপর থেকে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যা করছেন ভারতের জনপ্রিয় তেলেগু টেলিভিশন চ্যানেল (ভি ৬ চ্যানেল)-এর এক নারী সংবাদ উপস্থাপিকা। আরও জানা যায় যে গতকাল রবিবার রাতে অফিস থেকে হায়দরাবাদে তাঁর বাসায় ফেরার কয়েক ঘন্টা পরেই আত্মহত্যা করেন তিনি।

এদিকে আত্নহত্যা করা ওই নারী অ্যাঙ্করের নাম ভেঙ্কানগরী রাধিকা রেড্ডি (৩৬)। অথচ রবিবার রাত ৯টার বুলেটিনেও তিনি শেষ নিউজ পাঠ করেন বলে জানা গেছে। অফিসের কাজ শেষ করেই রাত ১০টা ৪০ মিনিটের হায়দরাবাদের মুসাপেট এলাকায় শ্রীভিলা অ্যাপার্টমেন্টের দোতলায় নিজের রুমে ফিরে আসেন। এরপর সেখান থেকে পাঁচ তলার ছাদে চলে যান এবং সেখান থেকেই নিচে ঝাঁপ দিয়ে আত্মহত্যার পথ বেছে নেন।

এ ব্যাপারে কুকাটপল্লী’র সহকারী পুলিশ কমিশনার ভুজঙ্গ রাও জানান ‘ওই নারী তাঁর ব্যাগটি দোতলায় নিজের ফ্ল্যাটের রুমে রেখে সোজা পাঁচ তলায় চলে যান এবং সেখান থেকে নিচে ঝাঁপ দেন। মাথায় ও পায়ে একাধিক আঘাতের কারণে ঘটনাস্থলেই তাঁর মৃত্যু হয়।’

কুকাটপল্লী পুলিশ ইতিমধ্যেই সন্দেহজনক মৃত্যুর ঘটনার অভিযোগ দায়ের করেছে এবং তার ভিত্তিতে তদন্তও শুরু করা হয়েছে।

এদিকে পুলিশের বিশেষ সূত্র হতে জানা যায় যে রাধিকার ব্যাগ থেকে একটি সুইসাইড নোট পাওয়া গেছে, যেখানে রাধিকা নিজেই জানিয়েছেন যে মানসিক চাপ থেকেই তিনি আত্মহত্যা করতে যাচ্ছেন এবং এর জন্য কেউ দায়ী নন। সুইসাইড নোটে তিনি লেখেন ‘মাই ব্রেইন ইজ মাই এনিমি’ (আমার মস্তিষ্কই আমার শত্রু)।

অপরদিকে রাধিকার সহকর্মীরা জানান, ছয় মাস আগে স্বামীর সঙ্গে বিবাহবিচ্ছেদ হয় তাঁর এবং তারপর থেকে বাবা-মা ও বোনের সঙ্গে থাকতেন রাধিকা।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে ওই নিউজ চ্যানেলের এক সংবাদ কর্মী জানান, ‘রাধিকার ১৪ বছরের একটি পুত্র সন্তান রয়েছে, তার নাম ভানু তেজা রেড্ডি। জন্ম থেকেই সে অটিজমে ভুগছে, কিন্তু পরিবারের এই সমস্যার কথা রাধিকা কখনোই অফিসে জানায়নি এবং সে খুব হাসিখুশি ছিল। অফিসে একজন দায়িত্বশীল কর্মী ছিলেন রাধিকা এবং একাধিক বিষয়ে তিনি অ্যাঙ্করিং করতেন বিশেষ করে ডিভোশনাল বিষয়গুলিতে তিনি খুবই পারদর্শী ছিলেন’। কিন্তু সকল পারদর্শিতার হাত থেকে রক্ষা পেতে শেষ পর্যন্ত নিজেই আত্নহত্যার পথ বেঝে নিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: