Home » খেলাধুলা » ফিফার সেরা একাদশ নিয়ে তুমুল বিতর্ক!
ফিফার সেরা একাদশ নিয়ে তুমুল বিতর্ক!
ফিফার সেরা একাদশ নিয়ে তুমুল বিতর্ক!

ফিফার সেরা একাদশ নিয়ে তুমুল বিতর্ক!

রাশিয়া বিশ্বকাপ যেনো অন্য সব আসরের চেয়ে একটু বেশিই কৌতুহলময়। গত ১৫ জুলাই পর্দা নেমেছে রাশিয়া বিশ্বকাপের। তবে উত্তেজনা আর নানা তর্ক বিতর্ক জুরে আছে এখনো। বিশ্বকাপ শেষের দুদিন পর টুর্নামেন্টের সেরা একাদশের নাম ঘোষণা করেছে ফুটবলের নিয়ন্ত্রণ সংস্থা ফিফা। আর এবার সেই একাদশেই চলছে তুমুল সমালোচনা। আর কেনই বা হবে না! সে একাদশে তারকা মেসি রোনালদো যে অনুপস্থিত। বিশ্বকাপ ফর্ম হিসাব অনুসারে সেটা হয়তো বা ঠিক সিদ্ধান্ত তাদের।

তবে, বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট ব্রাজিল কোয়ার্টার ফাইনাল থেকে বিদায় নিলেও দলটির দুই তারকা ফরোয়ার্ড নেইমার ও মিডফিল্ডার পওলিনহো একাদশে জায়গা পেয়েছেন। তালিকায় ৫ দেশের খেলোয়াড়রা জায়গা করে নিয়েছেন। আর সে বিষ্য়টিই মূলত বড় বিষয়। এছাড়াও বিশ্ব একাদশে রয়েছেন সবোর্চ্চ চারজন বিশ্বকাপ জয়ী দল ফ্রান্সের। ব্রাজিল, ক্রোয়েশিয়া ও ইংল্যান্ডেরও দু’জন রয়েছেন এই তালিকায়। অবশিষ্ট একজন বেলজিয়ামের। তবে, তালিকায় গোল্ডেন বল ও গোল্ডেন গ্লাভস বিজয়ীর নাম না থাকা নিয়ে বিতর্ক উঠেছে।

তবে টুর্নামেন্টের সর্বোচ্চ ৬ গোল করে গোল্ডেন বুট জয়ী ইংলিশ স্ট্রাইকার হ্যারি কেন কেনো নেই একাদশে আর সেখানে নেইমার কে কেনো নেয়া হল এ প্রশ্ন উঠছে অভিজ্ঞদের মুখে। যদিও নেইমারের রাখা নিয়ে যত বিতর্ক, হ্যারি কেনের না রাখা নিয়ে তত বিতর্ক নয়। কারণ ইংলিশ অধিনায়কের বেশির ভাগ গোলই পেনাল্টি থেকে করা। তবে নেইমারের রাখা নিয়ে তুমুল বিতর্ক উঠেছে। ফুটবল বিশেষজ্ঞদের দাবি, শেষ দুই ম্যাচে নেইমারের কিছু ঝলক দেখা গেলেও সেরা একাদশে থাকার মতো পারফর্ম তিনি করেননি।

অন্যদিকে, এবারের আসরের সেরা গোলরক্ষক যিনি জয়ী হয়েছেন গোল্ডেন গ্লাভস সেই বেলজিয়ামের গোলকিপার কুর্তোয়া নেই কেন একাদশে। পুরো টুর্নামেন্ট জুড়ে তার পারফর্ম ছিল অসাধারণ। নান্দনিক সব সেভ করে নিশ্চিত সব গোল বাঁচিয়েছেন তিনি। অথচ টুর্নামেন্টের সেরা একাদশে নেই কুর্তোয়া। তার জায়গায় ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ফাইনালে হাস্যকর ভুলে গোল খেয়ে বসা ফ্রান্সের গোলরক্ষক লরিসকে রাখা হয়েছে সেরা একাদশে।

প্রশ্ন উঠেছে আরেক ব্রাজিলিয়ান তারকা পওলিনহোকে নিয়েও। বলা হচ্ছে, তার চেয়ে ফ্রান্সের পগবা কিংবা কান্তে অনেক ভালো পারফর্ম করেছে। এমনকি ব্রাজিলিয়ান অ্যাটাকিং মিডফিল্ডার কুতিনহোও থাকতে পারতো সেই জায়গায়। কারও কারও মতে নেইমারের জায়গায় কুতিনহোকে রাখা হলেও ব্যাপারটা মানাতো। কিন্তু নেইমারকে কেন?

তবে সংশ্লিষ্টরা নেইমার বিষয়টি একটু আচ দিয়ে বলেছেন, সে এখনকার সেরা খেলোয়াড়। বিশ্বের সবচেয়ে দামী তারকা সে। তার মধ্যে রয়েছে ভিন্ন ধাচের অভিজ্ঞতা । একাই যে কোন মূহূর্তে দলকে সে এগিয়ে নিতে পারে হোক তার নিজস্ব খেলায় বা দলের হয়ে অন্যদের উৎসাহিত করায়। বরাবরই নেইমার সবার থেকে ভিন্ন। মেসি বা রোনালদো ভিন্ন স্কিল সম্পন্ন যা নেইমারের কিছু গুণ থেকেও কম।

ফিফার টিমের খেলোয়াড়ের তালিকা:
লরিস (গোলরক্ষ-ফ্রান্স), ট্রিপার (রাইট ব্যাক-ইংল্যান্ড), ভারানে (সেন্টার ব্যাক-ফ্রান্স), লভরেন (সেন্টার ব্যাক-ক্রোয়েশিয়া), ইয়ং (ফুল ব্যাক-ইংল্যান্ড), পওলিনহো (মিডফিল্ডার-ব্রাজিল), মদ্রিচ (মিডফিল্ডার-ক্রোয়েশিয়া), নেইমার (ফরোয়ার্ড-ব্রাজিল), গ্রিজম্যান (ফরোয়ার্ড-ফ্রান্স), হ্যাজার্ড (ফরোয়ার্ড- বেলজিয়াম)। ৪-২-৩-১ সাজানো একাদশে মূল স্ট্রাইকার হিসেবে রাখা হয়েছে ফ্রান্সের এমবাপ্পেকে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.

%d bloggers like this: