Home » বিশ্ব » বেঁচে থাকার তাগিদে কাঁচের ঘরেই ১৩ বছর!!!

বেঁচে থাকার তাগিদে কাঁচের ঘরেই ১৩ বছর!!!

বেঁচে থাকার জন্য মানুষ কি না করে। তাই বলে দীর্ঘ তেরো বছর কাঁচের ঘরে বাস করাও কি সম্ভব? কিন্তু বেঁচে থাকার তাগিদে স্বামী-সন্তান থাকা সত্ত্বে স্পেনের এক নারী ১৩ বছর ধরে কাঁচের ঘরে বাস করে আসছে।

ঘটনা সূত্রে জানা গিয়েছে, জুয়ানা নামের ওই মহিলার কাঁচের ঘরে বাস করার মূল উদ্দেশ্য হলো ভয়ংকর রোগের হাত থেকে বাঁচা। অনেকদিন আগে জুয়ানার স্বামী কিছু আলু এনে তাকে দেয়। এরপর আগের দিনগুলোর মতোই সে আলুগুলো পরিষ্কার করতে যায়। কিন্তু হঠাৎ করেই তিনি লক্ষ্য করেন তার ঠোঁট ও চোখের পাতা ক্রমশ ফুলে যাচ্ছে। কিছুক্ষণের মধ্যেই তার সমগ্র শরীর ফুলে যায়।

এ ঘটনার পর তাকে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে ডাক্তার পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর জানান, জুয়ানা মাল্টিপল কেমিক্যাল সেন্সিভিটি, ফিব্রোম্যালজিয়া ক্রনিক ফ্যাটিগ এবং ইলেক্ট্রোসেন্সিভিটির ভয়ংকর রোগে আক্রান্ত হয়েছেন। আর আশ্চর্যের বিষয় হলো এই সবকটি রোগ ওই আলুর সংস্পর্শে আসার কারণেই হয়েছে। কারণ ওই আলুতে বছর দুয়েক আগে নিষিদ্ধ কীটনাশক ছিটানো হয়েছিল।

এরপর থেকেই জুয়ানার কষ্টের জীবনের শুরু হয়। তার সমস্ত শরীর ক্রমশ দুর্বল হতে থাকে আর সাথে ভয়াবহ যন্ত্রণা এবং অ্যালার্জি। এছাড়া তার শরীরে রাসায়নিকের তীব্র প্রতিক্রিয়া শুরু হয়। যেকোনো রাসায়নিক, সেটা হোক সাবান কিংবা টুথপেস্টের সংস্পর্শ, তার শরীরে অসহ্য চুলকানি শুরু হতো। আর বাইরের পৃথিবীটা তার কাছে আরও যন্ত্রণাময় হয়ে ওঠে।

দীর্ঘ ১৩ বছর ধরে জুয়ানা এই ঘরেই বন্দি অবস্থায় রয়েছেন। বছরে একবার এই ঘর থেকে বের হওয়ার সুযোগ পান তিনি। তবে নিজের ইচ্ছামতো নয়, হাসপাতালে শারীরিক পরীক্ষার জন্য কয়েক ঘন্টার জন্য এই ঘর থেকে বের হন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*

%d bloggers like this: